যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক তিন প্রেসিডেন্ট দেশবাসীর অনিশ্চয়তা কাটাতে ক্যামেরার সামনে টিকা নিতে চান

এবার সমগ্র দেশবাসীর অনিশ্চয়তা কাটাতে ক্যামেরার সামনে টিকা নিতে চান সাবেক তিন প্রেসিডেন্ট ওবামা, বুশ, ক্লিন্টন, আগ্রহী বাইডেনও করোনা ভাইরাসের প্রতিষেধক নিয়ে অনিশ্চয়তায় নাগরিকদের একটা বড় অংশ। তাঁদের ভয় দূর করতে এ বার এগিয়ে এলেন আমেরিকার (যুক্তরাষ্ট্রের) সাবেক তিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা, জর্জ ডব্লিউ বুশ এবং বিল ক্লিনটন।

তারা জানিয়ে দিলেন, প্রতিষেধক যদি নিরাপদ হয়, তাহলে সংবাদমাধ্যমের ক্যামেরার সামনে টিকাগ্রহণে আপত্তি নেই তাঁদের, যাতে তাঁদের দেখে টিকা নিতে উৎসাহী হন সমগ্র দেশবাসী।আবার এদিকে প্রকাশ্যে টিকাগ্রহণে আগ্রহী হবু প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনও। আমেরিকায় কোভিড প্রতিষেধকের দায়িত্বে রয়েছেন সে দেশের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিস (এনআইএআইডি)-এর ডিরেক্টর অ্যান্টনি ফাউচি। প্রতিষেধক কতটা নিরাপদ সে বিষয়ে তাঁর কাছ থেকে আশ্বাস পেলেই এগিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন সাবেক তিন প্রেসিডেন্ট ।

একটি রেডিয়ো সাক্ষাৎকারে তারা বলেন, ‘অ্যান্টনি ফাউচি যদি বলেন, প্রতিষেধক নিরাপদ, কোভিডের বিরুদ্ধে শরীরে সেটি প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সক্ষম, তাহলে টিকা আমরা নেব এতে আমাদের কোন আপত্তি নেই । দেশবাসীর ভয় কাটানোর জন্য ক্যামেরার সামনেও প্রতিষেধক নিতে আমরা প্রস্তুত বলে জানান সামেক তিন প্রেসিতেন্ট। ওবামা বলেন, ‘‘প্রয়োজনে টিভি চ্যানেলের ক্যামেরার সামনে টিকা নিতে পারি। ভিডিয়ো রেকর্ডিং করে তা দিতে পারি সংবাদমাধ্যমকে। তাতে অন্তত সমগ্র দেশব্যাপী  জানতে পারবেন যে, আমি এই বিজ্ঞানে বিশ্বাস করি। টিকাকরণের প্রচারে অংশ নিতে প্রাক্তন প্রেসিডেন্টের কোনও আপত্তি নেই বলে জানিয়েছেন বুশের চিফ অব স্টাফ ফ্রেডি ফোর্ডও।

তিনি বলেন, ‘‘প্রতিষেধক যে নিরাপদ, প্রথমে তা প্রমাণ করতে হবে । তা হলে যুক্তরাষ্ট্রের ৪৩তম প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশও প্রতিষেধক নেবেন। ক্যামেরার সামনে প্রতিষেধক নিতেও আপত্তি নেই তাঁর।’’ওদিকে বিল ক্লিন্টনও প্রতিষেধক নিতে আগ্রহী বলে জানিয়েছেন তাঁর প্রেস সচিব এঞ্জেল উরেনা। সিএনএন-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এর পরে টিকাগ্রহণে আগ্রহ প্রকাশ করেন হবু প্রেসিডেন্ট বাইডেনও। প্রতিষেধকের কতটা নিরাপদ, তা নিয়ে সমগ্র দেশব্যাপীর মানুষকে আশ্বস্ত করা প্রয়োজন বলে জানান তিনি। টিকাগ্রহণে এগিয়ে আসার জন্য তিন পূর্বসূরিকে ধন্যবাদও জানান তিনি। আমেরিকায় এই মুহূর্তে কোভিডের সম্ভাব্য প্রতিষেধক নিয়ে তৈরি দুই সংস্থা, ফাইজার এবং মডার্না। এই দুই সংস্থা  আশা করছে খুব শীঘ্র নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাছ থেকে ভালো সঙ্কেত পেতে পারে তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.