ভাঁস্তকে হারিয়ে পিএসজির জয়

প্রতিকূল পরিবেশে বল দখলে আধিপত্য করলেও আক্রমণে ভালো করতে পারেনি।পসরা সাজিয়ে ভাঁস্তকে উড়িয়ে দিল পিএসজি। এবার  লিগের জয়ে ফেরা এ দলটি ব্যবধান কমাল অলিম্পিক লিঁওর সঙ্গে। গতকাল  শনিবার রাতে লিগ ওয়ানে ৩-০ গোলে জিতেছে আক্রমণাক্ত দল  পিএসজি। মোইজে কিন দলকে  এগিয়ে নেওয়ার পর দ্বিতীয়ার্ধে ব্যবধান আরও বাড়তে থাকে, দ্বিতীয়ার্ধে দলকে এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেএে ভুমিকা রাখে  মাউরো ইকার্দি ও পাবলো সারাবিয়া।
  চলতি বছর ও নতুন কোচ এ দুই মিলিয়েই কোচ মাওরিসিও পচেত্তিনোর অধীনে এটাই প্যারিসের দলটির প্রথম জয় । নতুন বছরে  নতুন কোচকে জয়ের উচ্ছ্বাস এনে দিল দলটি। শারীরিক  চোট ও মহামারী  করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারনে বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়কে হারালেও খেলার  শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক হয়ে উঠে  পিএসজি। তবে এক্ষেত্রে ঠিক  আগের ম্যাচে সাঁত এতিয়েনের বিপক্ষে ড্র করা দলটির মত এবার গোলের জন্য বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি আক্রমণাক্তক পিএসজিকে।
    খেলার শুরুতেই কিন অত্যন্ত নিপুণ কৌশলে  ষোড়শ মিনিটে দলকে এগিয়ে নেন । আনহেল দি মারিয়ার কর্নার থেকে মার্কিনিয়োসের হেডে একটি ভালো  সুযোগ আসে কিলিয়ান এমবাপের সামনে। কিন্তু দুঃখের বিষয়  বলে পা ই ছোঁয়াতে পারেননি তিনি। এর কিছুক্ষণ পরই পোস্টে লেগে ফেরা বলে খুব কাছ থেকে হেড করে  জাল খুঁজে নেন কিন। আবার খেলার ২৭তম মিনিটে ব্যবধান একটুর জন্য দ্বিগুণ হয়নি । দি মারিয়ার কাছ থেকে বল পেয়েই ইদ্রিসা গেয়ির দুর্বল শটের সম্ভবনাময় গোলটি কোনোমতে পা দিয়ে ঠেকান ভাঁস্ত গোলরক্ষক। আবার এদিকে ৪২তম মিনিটের সময় পিএসজি বড় বিপদ থেকে রক্ষা পায়। ভাঁস্ত খেলোয়াড়  রোমা ফাভের ফ্রি-কিক কোনোমতে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন পিএসজি গোলরক্ষক কেইলর নাভাস।
    বিরতির পর খেলার  শুরুতেই সুযোগ আসে এমবাপের সামনে। তবে ফরাসি এই খেলোয়াড়  ছয় গজ দূর থেকেও বল জালে পাঠাতে পারেননি । বিরতির পর থেকেই গোলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠে  ভাঁস্ত চেপে ধরে পিএসজিকে।ভাঁস্ত আক্রমণ করলেও  রক্ষণে মনোযোগ দেওয়া শিরোপাধারীদের সামনে প্রতি-আক্রমণ থেকে আসে বড় সুযোগ। খেলার ৬০তম মিনিটে দি মারিয়ার চমৎকার পাস পেয়ে খুব কাছ থেকেই আড়াআড়ি শট নেন এমবাপে।কিন্তু  গোলরক্ষকের পায়ে লেগে বলটি বাইরে  চলে যায় ।
     ৬৭ তম মিনিটে এমবাপের আরও দুটি চেষ্টা ঠেকিয়ে দেন সফরকারী এই গোলরক্ষক। ৭৮তম মিনিটে ইকার্দির শটটিও ঝাঁপিয়ে ঠেকান এই গোল রক্ষক। তার তিন মিনিট পরেই ঠিক জালের দেখা পান এই আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার। এমবাপের কাট ব্যাক থেকে বল পেয়ে নিচু শটে গোলের ব্যবধান দ্বিগুণ করেন আর্জেন্টাইন এই স্ট্রাইকার  । আবার খেলার ৮৩তম মিনিটে সারাবিয়ার গোলে স্কোরলাইন ৩-০ করেন ।তার সুযোগটি তৈরি করে দিয়েছেন  ইকার্দি আর বাকি কাজটা তিনি বল পেয়ে অনায়াসে সারিয়ে নেন । এই জয় নিয়ে ১৯ ম্যাচে ৩৯ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্টের  তালিকায় দুই নম্বরে উঠে এসেছে পিএসজি।