বয়স ৪৭ কমেনি রূপের ঝলক

বলিউড অভিনেত্রী কাজলের জন্মদিন  ৫ আগস্ট। এর মধ্য দিয়ে ৪৭ বছরে পদার্পন করলেন এই  মেধাবী অভিনেত্রী । তার বিশেষ দিনটি বরাবরের মত প্রিয়জনদের সঙ্গে উদযাপন করেছেন । ১৯৭৪ সালে মুম্বাইয়ের এক প্রতিষ্ঠিত বাঙালী মারাঠী চলচ্চিত্র পরিবারে তার জন্ম। জানা যায়, তার পরিবারের তিনি চলচ্চিত্রে চতুর্থ প্রজন্ম। স্বনামধন্য প্রযোজক ও পরিচালক শমু মুখার্জি কাজলের বাবা এবং অভিনেত্রী তনুজা তার মা। দাদা শশধর মুখার্জি চলচ্চিত্র পরিচালক। একাধারে চাচা জয় মুখার্জি ও দেব মুখার্জি চলচ্চিত্র প্রযোজক। সকলের প্রিয় বলিউড অভিনেত্রী রাণী মুখার্যী ও শ্রাবণী মুখার্জি কাজলের চাচাতো বোন। পরিবারের অগণিত সদস্য চলচ্চিত্রে থাকায় অভিনয় জগতে আসতে খুব একটা কষ্ট করতে হয়নি তাকে।

১৯৮৩ সালে সর্বপ্রথম ক্যারাটে সিনেমায় তিনি শিশু চরিত্রে পর্দায় আসেন মাত্র ৯ বছর বয়সে। পরে ১৯৯২ সালে নায়িকা হিসেবে বেখুদি সিনেমায় অভিনয় করেন। বিভিন্ন হিট সিনেমায় তাকে কাজ করতে দেখা যায়। অজয় দেবগণ, সালমান খান,শাহরুখ খান, আমির খান সহ স্বনামধন্য বিভিন্ন নায়কের সাথে তাকে সিনেমায় দেখা যায়। তবে এর মধ্যে শাহরুখ খানের সাথে তার জুটিকে দর্শকদের চোখে বলিউডের সেরা জুটি বলা হয়ে থাকে। তবে বাস্তব জীবনে ১৯৯৯ সালে ২৪ ফেব্রুয়ারী সহশিল্পী অজয় দেবগনের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।

বর্তমানে দুই সন্তানের মা তিনি। অভিনেত্রী কাজলের উল্লেখযোগ্য সিনেমার মধ্যে <h4>কুছ কুছ হোতা হে, বাজিগর, কাভি খুশি কাভি গাম, দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে, ফানা, মাই নেম ইজ খান, ইশক</h4> অন্যতম। তার অসাধারন অভিনয়ের জন্য ফিল্মফেয়ারে এই পর্যন্ত ছয়বার পুরস্কৃত হয়েছেন। ভারত সরকার ২০১১ সালে তাকে পদ্মশ্রী সম্মাননা জানান। এছাড়া অভিনেত্রী কাজল সমাজের বিধবা ও শিশুদের নিয়ে কাজ করে থাকেন। এ সকল সমাজকল্যাণ মূলক কাজের জন্য ২০০৮ সালে কর্মবীর পুরস্কার লাভ করেন। আজ তার বিশেষ দিনে তিনি জানান, জন্মদিন আমার ভালো লাগে। জন্মদিন ভালোভাবে উদযাপনের জন্য এই সময় কোন কাজ রাখি না। তার এই বিশেষ দিনে বলিউডের সকল অভিনেতা অভিনেত্রী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক ও টুইটারে তাকে অভিনন্দন জানান। করোনা মহামারীতে তিনি দীর্ঘদিন চলচ্চিত্র থেকে বিরত আছেন। তবে শোনা যাচ্ছে রাজ কুমার হিরাণির সিনেমায় আবারো জনপ্রিয় জুটি হিসেবে কাজল-শাহরুখের অভিষেক ঘটতে পারে।