পাল্টা চাপ বাড়িয়ে এগিয়ে গেল রিয়াল মাদ্রিদ

মঙ্গলবার রাতে আলফ্রেদো দি স্তেফানো স্টেডিয়ামে লা লিগার ম্যাচটিতে ৩-১ গোলে জিতেছে  রিয়াল। মূলত টনি ক্রসের গোলে এগিয়ে যাওয়ার পর তারা সমতা টানেন আন্দের কাপা। করিম বেনজেমা স্বাগতিকদের শেষ দুটি গোল করেন। দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়া রিয়াল এখন ঘুরে দাঁড়িয়ে  দুর্দান্ত সময় কাটাচ্ছে। শেষ ১০ দিনে চার ম্যাচে তারা শতভাগ সাফল্য পেল তারা।এগুলোর মধ্যে   তারা গোল করেছে ৮টি, আর হজম করেছে ১টি। বিলবাও প্রথম  চার মিনিটে দুবার প্রতিপক্ষের শক্তিশালী রক্ষণ ভেঙে ভীতি ছড়ায় । দলটি তো ত্রয়োদশ মিনিটে তো এগিয়েই যেতে পারতো ; কিন্তু  ইনাকি উইলিয়ামস ডি-বক্সে ঢুকে লক্ষ্যভ্রষ্ট শটে হতাশ করেন।  অহেতুক টনি ক্রুসকে পেছন থেকে ফাউল করে ১৪তম মিনিটে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখেন গার্সিয়া। পাঁচ মিনিট আগেও  মাঝমাঠে যে ফাউলের কারণে  প্রথম হলুদ কার্ড দেখেছিলেন , সেটাও ছিল বোকামির শামিল।

দুই জয়ে আত্মবিশ্বাসী হয়ে ওঠা রিয়ালের বিপক্ষে বিলবাওয়ের শুরুটা ছিল আশা জাগানিয়া। তবে রাউল গার্সিয়াকে হারিয়ে  চতুর্দশ মিনিটে চরম ধাক্কাটা খায় তারা। ছয় মিনিট পর ডি-বক্সে বল পায়ে দারুণ কারিকুরিতে একজনকে কাটিয়ে ও আরেকজনের বাধা এড়িয়ে বেনজেমার নেওয়া শট প্রতিহত হয়। ওই বল ধরে লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নেন চোট কাটিয়ে ফেরা ফেদে ভালভেরদে।

অধিকাংশ সময় বলের দখলে থাকলেও তেমন কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি  রিয়াল । প্রথম ৪০ মিনিটে আটটি শট নিলেও একটিও  কাজে লাগাতে পারেননি।
তবে ঠিক এরপর দুই মিনিট পরই  দারুণ দুটি সুযোগ পায় দলটি। বাঁ দিক থেকে লুকা মদ্রিচের ক্রসে ভিনিসিউসের টোকার সামনে দেয়াল হয়ে দাঁড়ান গোলরক্ষক উনাই সিমোন। দ্বিতীয় সুযোগটি কাছ থেকে লক্ষ্যভ্রষ্ট শটে নষ্ট করেন ভালভেরদে।যোগ করা সময়ের প্রথম মিনিটে ডি-বক্স থেকে ভিনিসিউসের কাটব্যাক পেয়ে ২২ গজ দূর থেকে জোরালো শটে আসরে নিজের প্রথম গোলটি করেন জার্মান মিডফিল্ডার।

দ্বিতীয়ার্ধের সপ্তম মিনিটে পাল্টা আক্রমণে সমতা টানে তারা। আন্দের কাপার প্রথম শট থিবো কোর্তোয়া ঠেকালেও বিপদমুক্ত করতে পারেননি, ফিরতি বল ধরে ঠাণ্ডা মাথায় গোলটি করেন স্প্যানিশ ডিফেন্ডার কাপা। তার দ্বিতীয় শটের আগে বল ক্লিয়ার করার সময় পেয়েছিলেন ভারানে ও রামোস; কিন্তু পারেননি কেউই। পাল্টা আক্রমণের ঠিক পরক্ষণেই ভিনিসিউস জালে বল পাঠিয়েছিলেন। তবে লাইন্সম্যান অফসাইডের পতাকা তোলেন । ৭৪তম মিনিটে আর বিমুখ হতে হয়নি দলটিকে । ছোট করে নেওয়া কর্নারের পর ডান দিক থেকে দানি কারভাহালের ছয় গজ বক্সের মুখে বাড়ানো দারুণ ক্রসে লাফিয়ে হেডে বেনজেমা আবারও দলকে এগিয়ে নেন ।ওখান থেকেই প্রতি-আক্রমণে মদ্রিচের বাড়ানো বল ধরে স্কোরলাইন ৩-১ করেন বেনজেমা। আসরে ফরাসি ফরোয়ার্ডের এটি ষষ্ঠ গোল, সব প্রতিযোগিতা মিলে শেষ ৯ ম্যাচে ৯টি।১১ ম্যাচে ১৭ পয়েন্ট নিয়ে আট নম্বরে বার্সেলোনা। ১৩ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে ১৩ নম্বরে বিলবাও।