নজরদারি এবার আকাশ থেকে

অবৈধভাবে ইকুয়েডরের জলসীমায় ঢুকে মাছ শিকার করছিল চীনের কিছু নৌযান। ইকুয়েডর ৩৪০টি বিদেশি নৌযানকে তাদের জলসীমায় মাছ ধরতে দেখে। আন্তর্জাতিক সমুদ্র আইন অনুসারে কোনো জাহাজ বা নৌযানকে জিপিএসভিত্তিক একটি এআইএস বহন করতে হয় যাতে জাহাজের অবস্থান শনাক্ত করা যায়। নিয়ম হলো নৌযানকে ওই সিস্টেমটি সব সময় চালু রাখতে হবে।

কিন্তু ইকুয়েডরের জলসীমায় মাছ ধরার সময় ওই নিয়ম মানা হয়নি। কিন্তু ইকুয়েডরের নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত এ অভিযোগ মেনে নিতে রাজি নন। তাদের মতে সব নৌযান ও জাহাজ নিয়ম মেনেই মাছ শিকার করেছে। তবে গত অক্টোবরে যুক্তরাষ্ট্রের কৃত্রিম উপগ্রহ পরিচালনা প্রতিষ্ঠান হকআই ৩৬০ নামের একটি প্রতিষ্ঠান ঘোষণা দেয় যে , ইকুয়েডরের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে ১৪ বার বিদেশি জাহাজ ঢোকার বিষয়টি শনাক্ত করেছে তারা। হকআইয়ের তৈরি স্যাটেলাইট বা কৃত্রিম উপগ্রহ সংকেত বন্ধ থাকলেও একবারে নিখুঁতভাবে জাহাজের অবস্থান শনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছে।