ধীর গতিতে ব্যাট করছে আফগানরা

স্বাগতিক ইংল্যান্ডের দেয়া ৩৯৮ রানের নিচে চাপা পড়ার মতো অবস্থা আফগানদের। পাহাড়সম রান তাড়া করতে নেমে শুরুতেই উইকেট খোয়ায় তারা। আফগান ওপেনার নুর আলী জাদরান ফেরেন খালি হাতে। উইকেটটি পান ইংলিশ পেসার জোফরা আর্চার। 

এরপর হানা দেন মার্ক উড। ৩৭ রান করা অধিনায়ক গুলবদিন নায়েবকে ফেরান তিনি। আর ৪৬ করা রহমত শাহ আদিল রশিদের বলে কাটা পরেন। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ৩৬ ওভার শেষে ৩ উইকেট হারিয়ে আফগানদের সংগ্রহ ১৮০।হাশমতউল্লাহ ৫৬ ও আসগর আফগান ৩৪ রানে অপরাজিত আছেন।

এর আগে প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ড ব্যাটসম্যানদের ব্যাট থেকে ২১ চার ও ২৫ ছয়ের মারে আসে ৩৯৭ রান। দেখে মনে হবে টিভিতে হাইলাইটস দেখানো হচ্ছিল। আজ আফগান বোলারদের বাগে পেয়ে এভাবেই চার-ছক্কার মারের উৎসবে মেতেছিলেন ওল্ড টাফোর্ডে বিশ্বকাপের ২৪তম ম্যাচে ব্যাট করা স্বাগতিক ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা। 

রশিদ খান, দৌলত, নবী কারো বলই পাত্তা পেলো না মরগান, রুট, বেয়ারস্টোদের কাছে। একের পর এক চার-ছক্কায় ভাসিয়েছেন ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা। আর তাদের এই মারকুটে ব্যাটিংয়ে আফগানদের সামনে লক্ষ্য গিয়ে দাঁড়ায় ৩৯৮ রানে। 

ব্যাটিংয়ে এসেই ঝড় তোলেন মরগান। তার ব্যাট থেকেই আসে ১৭টি ছয়ের মার। যা আফগান বোলারদের বেসামাল করে দিয়েছিল। আউট হয়ে সাজঘরে ফেরার আগে মরাগান মাত্র ৭১ বলে করে যান ১৪৮ রান করেন।  এছাড়াও বেয়ারস্টো ও জো রুটের ব্যাটে ছিল রানের ছড়াছড়ি। বেয়ারস্টো করেন ৯০ ও রুট আউট হন ৮৮ রানে। এই তিন খেলোয়াড়ারের ভয়ংকর ব্যাটিংয়ে এই বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ ৩৯৭ রান আসে ইংলিশদের ব্যাট থেকে। আফগানদের পক্ষে দৌলত জাদরান, গুলবদিন নাইব নেন ৩টি করে উইকেট। 

এছাড়া আফগান পোস্টার বয় রশিদ খান গড়েন এক লজ্জার রেকর্ড। এই স্পিনার ৯ ওভারে দেন ১১০ রান। রশিদ খানের বলে ছয় আসে ১১টি।