ঘাম ঝরানো জয় বার্সার

    ওয়েস্কা যেকোনো মূল্যে যেন ঘর সামলানোর পণ করেছিল । প্রতিপক্ষের পুরোপুরি রক্ষণাত্মক কৌশল, সঙ্গে নিজেদের সুযোগ নষ্টের মিশেলে ঘাম ছুটে গেল বার্সেলোনার। তারপরও স্বস্তি, কষ্টে হলেও বছরের শুরুটা তাদের  জয় দিয়েই হলো ! একদিকে লা লিগার পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে থাকা পুচকে ওয়েস্কার রক্ষণাত্মক ঢং। অন্যদিকে বার্সার সাজানো আক্রমণে শেষ ছোঁয়ার অভাব, এই দুই মিলিয়ে জয় পেতে দারুণ পরিশ্রম করতে হয়েছে বার্সেলোনার। শেষ পর্যন্ত ১-০ গোলে জয় নিয়ে ফিরেছে বার্সেলোনা। প্রথমার্ধের একমাত্র গোলটি করেন ফ্রেংকি ডি ইয়ং।
     লিওনেল মেসি  ইনজুরি  কাটিয়ে সতীর্থের গোলে অবদান রাখলেন বটে, কিন্তু  অসংখ্য সুযোগ নষ্ট করে হতাশও করলেন ।   ঠিক একই ভাবে একের পর এক সুযোগ নষ্ট করেছেন উসমান দেম্বেলে ও পেদ্রিরাও।      বার্সেলোনার প্রথমার্ধে  ১৩ শটের মধ্যে চারটি ছিল লক্ষ্যে আর বাকি সব লক্ষ্যভেষ্ট হয়। এদিকে  ওয়েস্কা বিরতির আগে গোলে কোনো শট না নেওয়ায় দ্বিতীয়ার্ধে  আক্রমণাত্মক হয়ে  ওঠে, বিরতির পর তাদের চারটি শটের সবকটিই ছিল লক্ষ্যে।
    মাত্র একটি ম্যাচ জেতা ওয়েস্কার ওপর শুরু থেকে চাপ বাড়ানো বার্সেলোনা সপ্তম মিনিটের সময় সুবর্ণ সুযোগটি পেয়েছিল। আবার এদিকে বাঁ দিক থেকে জর্দি আলবারের  পাস প্রতিপক্ষের পায়ে লেগে ছয় গজ বক্সের মুখের দিকে পেয়ে যান পেদ্রি। তবে ঐ মূর্হূতে গোলরক্ষক ঠিকই তার দুর্বলটি শট হাত বাড়িয়ে রুখে দেন। ওয়েস্কা পুরোপুরি রক্ষণাত্মক কৌশল নেওয়া  ডি-বক্সের দুই মিনিট পর মেসি ঠিকই ফাঁকায় বল পেয়েছিলেন । কিন্তু আর্জেন্টাইন এই তারকা লাফিয়ে নেওয়া শটে লক্ষ্যের ধারেকাছে বল রাখতে পারেননি । তারই ঠিক দুই মিনিট পর আরও দুটি সুযোগ নষ্ট হয় তাদের। ঘরের মাঠে ড্র করা বার্সেলোনা লিগে শেষ চার ম্যাচে এই নিয়ে দ্বিতীয় জয় পেল। আসরে তাদের জয় আটটি। সঙ্গে চার ড্রয়ে ১৬ ম্যাচে ২৮ পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চম স্থানে উঠেছে তারা।
    তবে ম্যাচের ২৭ মিনিটে কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা পায় বার্সা।  মেসি বাঁ দিক থেকে ছোট ডি-বক্সের মুখে বাড়ানো  দারুণ ক্রসে লাফিয়ে দেওয়া টোকায় ডি ইয়ং গোলরক্ষককে পরাস্ত করে ফেলেন। আাবার ঠিক তার ৪১তম মিনিটের সময় মেসির দারুণ ফ্রি কিক বাঁক খেয়ে বল জালে জড়াতে যাচ্ছিল।কিন্তু গোলরক্ষক ফের্নান্দেস ঝাঁপিয়ে কোনোমতে এক হাত দিয়ে বল ক্রসবারের ওপর দিয়ে পাঠিয়ে দেন। আবার বিরতির ঠিক  একাদশ মিনিটের সময় প্রতি-আক্রমণে দেম্বেলের শট আগুয়ান গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে জালভেদ করার লক্ষ্যে ছিল। কিন্ত  ডিফেন্ডার গালান মাঝপথে তা  প্রতিহত করেন ।আবার রাফা মির ৬১তম মিনিটের সময় নিজেদের দ্বিতীয় কর্নারে গোলমুখে সুর্বণ সুযোগটি পেয়েছিলেন। মেসি খেলার শুরু থেকে অনেকগুলো সুযোগ নষ্ট হওয়ার পর  ৬৯তম মিনিটের সময়  গোলরক্ষক জোরালো শটটিও ঠেকিয়ে দেন । ঠিক তারই ৮ মিনিট পর দেম্বেলের আরেকটি প্রচেষ্টা রুখে ব্যবধান বাড়তে দেননি ফের্নান্দেস।
    আবার এদিকে  রিয়াল সোসিয়েদাদ ১৮ ম্যাচে ৩০ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে ।  ভিয়ারিয়াল ১৭ ম্যাচে ২৯ পয়েন্ট নিয়ে চার নম্বরে আছে । আবার এদিকে দিনের অন্য ম্যাচে আলাভেসের মাঠে ২-১ গোলে জিতে শীর্ষে ফিরেছে আতলেতিকো মাদ্রিদ। ১৫ ম্যাচে ১২ জয় ও দুই ড্রয়ে তাদের পয়েন্ট ৩৮। আবার এদিকে দুটি ম্যাচ বেশি খেলায় রিয়াল মাদ্রিদের পয়েন্ট ৩৬।