করোনাভাইরাসের ভ্যাক্সিন নিলেন প্রথম বাংলাদেশি

স্বর্ণা রহমান বাংলাদেশি হিসেবে ইতালিতে প্রথম করোনাভাইরাসের ভ্যাক্সিন নিলেন। ইতালিতে প্রথম বাংলাদেশি স্বেচ্ছাসেবিকা হিসেবে করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক ভ্যাক্সিন নিয়েছেন স্বর্ণা রহমান (২৭)।তার পিতা আজিজুর রহমান ও মাতা মাহফুজা রহমান দম্পতির প্রথম কন্যা স্বর্ণা রহমান। তার গ্রামের বাড়ি ঢাকার কেরানীগঞ্জের দোহারে।তিনি ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়া শেষ করে ২০০৪ সালে পরিবারের সাথে ইতালিতে পাড়ি জমান।ইতালির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় শহর মনফালকোনে-তে পরিবারের সাথে বসবাস করেন স্বর্ণা।  পরে দেশটির একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা শেষ করেন তিনি।

        বিদায়ী বছরের শেষ দিন গতকাল বৃহস্পতিবার ভেনিসের মনফালকোনের একটি হাসপাতালে এ ভ্যাক্সিন নেন তিনি। এবিষয়ে স্বর্ণা রহমান বলেন, ইতালির প্রথম কোন বাংলাদেশি হিসেবে করোনা ভ্যাক্সিন গ্রহণ করাটা  আমার জন্য সত্যিই খুব গর্বের বিষয়। আমি সবার দোয়া কামনা করছি।প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে স্বর্ণার বাবা আজিজুর রহমান বলেন, “আমার মেয়ে বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণে রয়েছে। সবাই আমার মেয়ের জন্য দোয়া করবেন।
       বিদায়ী বছরের ডিসেম্বরের ২৭ তারিখ থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের মেডিসিন বিভাগের অনুমতি নিয়েই ফাইজার ও বায়োএনটেকের ভ্যাক্সিন প্রয়োগ শুরু করে ইতালি। প্রথম ধাপে দেশটির মোট ৯ হাজার ৭৫০ জন স্বাস্থ্যকর্মী ও  বয়স্ক মানুষের শরীরে এ ভ্যাক্সিন প্রয়োগ করা হয় বলে জানিয়েছেন তিনি ।
            এছাড়াও নতুন বছরের প্রথমদিকে আরো প্রায় ১ দশমিক ৮ মিলিয়ন মানুষের শরীরে এ ভ্যাক্সিন প্রয়োগের কথা রয়েছে।  ইতোমধ্যে দেশটির বিভিন্ন শহরের প্রায় ১৫ হাজার মানুষের শরীরে ভ্যাক্সিন প্রয়োগ করা হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় কোন বাংলাদেশি স্বেচ্ছাসেবিকা হিসেবে বৃহস্পতিবার স্ব-ইচ্ছায় ভ্যাক্সিন নিলেন স্বর্ণা। বর্তমানে স্বর্ণা রহমান  ‘সান পাওলো মনফালকোন’ হাসপাতালে একজন সেবিকা হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।