আর্সেনালের ৪-০ গোলের জয়

      ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগে টানা সাত ম্যাচে দেখা পায়নি আর্সেনাল। ম্যাচটি ছিল আর্সেনালের রেলিগেশনের শঙ্কাও। বড়দিনের উৎসবের দিন দলটির কোচ মিকেল আর্তেতা বলেছিলেন, ঘুরে দাঁড়াতে হলে পরের তিন ম্যাচ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর্সেনাল তখন ছিল পয়েন্ট তালিকার পঞ্চদশ স্থানে। বক্সিং ডেতে চেলসিকে হারিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর শুরু গানারদের। এরপর ব্রাইটন এবং শনিবার রাতে ওয়েস্টব্রমকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে মিকেল আর্তেতার দল। চলতি মৌসুমে আর্সেনালের এটাই সবচেয়ে বড় ব্যবধানে জয়। ঘুরে দাঁড়ানোর ম্যাচে নিজেদের নতুন বছরের শুরুটা দারুণ হলো আর্সেনালের।
    জোড়া গোল করেন আলেকসঁদ লাকাজেত। একবার করে জালের দেখা পান কিয়েরন টিয়ারনি ও বুকায়ো সাকা। প্রিমিয়ার লিগে টানা সাত ম্যাচে জয়শূন্য থাকার পর বছরের শেষ দুই ম্যাচে জিতেছিল আর্সেনাল। আসরে প্রথমবারের মতো টানা তিন জয়ের স্বাদ পেল তারা। ম্যাচের শুরু থেকে ওয়েস্ট ব্রমউইচকে চেপে ধরে ছিল আর্সেনাল। প্রথম ১০ মিনিটে এক্তর বেইয়েরিন ও সাকার দুটি প্রচেষ্টা রুখে দেন স্বাগতিক গোলরক্ষক স্যাম জনস্টোন। ষোড়শ মিনিটে সুবর্ণ সুযোগ পান পিয়েরে-এমেরিক অবামেয়াং। কিন্তু সাকার ক্রসে দূরের পোস্টে বলে পা ছোঁয়াতে পারেননি গ্যাবনের এই স্ট্রাইকার। ২০তম মিনিটে এই ম্যাট ফিলিপসের শট ফিরিয়ে জাল অক্ষত রাখেন আর্সেনাল গোলরক্ষক বার্নড লেনো।
   পাঁচ মিনিটের ব্যবধানে দুই গোল করে ম্যাচের লাগাম নিজেদের হাতে নিয়ে নেয় আর্সেনাল। ২৩তম মিনিটে ডান দিকে এক খেলোয়াড়কে কাটিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে ডান পায়ের শটে দূরের পোস্ট দিয়ে ঠিকানা খুঁজে নেন টিয়ারনি এবং ২৮তম মিনিটে লাকাজেতকে ডান দিকে পাস দিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে পড়েন সাকা। সতীর্থের বাড়ানো বলে এমিল স্মিথ নিজে শট না নিয়ে দেন সাকাকে, ফাঁকা জালে বল পাঠান এই ইংলিশ মিডফিল্ডার।
    ৩২তম মিনিটে লাকাজেতের শট ওয়েস্ট ব্রমউইচের এক খেলোয়াড়ের গায়ে লেগে জালে জড়াতে যাচ্ছিল। লাফিয়ে এক হাতে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন জনস্টোন। বিরতির আগে আরেকটি সেভ করেন তিনি। দ্বিতীয়ার্ধে আরেকটি চার মিনিটের ঝড়।দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে বল জালে পাঠালেও অফসাইডের কারণে গোল পায়নি স্বাগতিকরা। খানিক বাদে চার মিনিটের মধ্যে দুই গোল করে জয় প্রায় নিশ্চিত করেন ফেলেন লাকাজেত। ৬০তম মিনিটে সাকার ক্রস ওয়েস্ট ব্রমউইচের সেমি আজায়ি বিপদমুক্ত করতে গিয়ে নিজেদের জালে জড়াতে বসেছিলেন। বল পোস্টে লেগে ফেরার পর স্মিথের শট ব্লক করেন আজায়ি। এরপর নিচু শটে লক্ষ্যভেদ করেন লাকাজেত। আর টিয়ারনির ক্রসে কাছ থেকে সহজেই ভলিতে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন এই ফরাসি ফরোয়ার্ড।
   প্রথম ১৪ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট পাওয়া আর্সেনাল টানা তিন জয়ে তুলে নিল ৯ পয়েন্ট। ১৭ ম্যাচে ২৩ পয়েন্ট নিয়ে গানাররা উঠে এসেছে একাদশ স্থানে। আরেক ম্যাচে লিডস ইউনাইটেডকে ৩-০ গোলে হারিয়ে দেয়া টটেনহ্যাম হটস্পার রয়েছে তৃতীয় স্থানে। স্পার্সদের সংগ্রহ ১৬ ম্যাচে ২৯ পয়েন্ট। টটেনহ্যামের সমান ম্যাচে ৩৩ পয়েন্ট করে নিয়ে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড দুইয়ে ও শিরোপাধারী লিভারপুল আছে শীর্ষে।