আটকে পড়া  কুয়েত প্রবাসীদের অবশেষে ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত

বৃহস্পতিবার বিকেলে দেশটির মিসিলা এলাকায় অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসে  বক্তব্য দেন রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ আশিকুজ্জামান।  তিনি কুয়েত সরকার কর্তৃক ঘোষিত সাধারণ ক্ষমা, দেশে আটকে পড়া কুয়েত বাংলাদেশী প্রবাসী ও ইয়েমেনের সানায় হুতিদের হাতে আটক ৫ জন বাংলাদেশিকে উদ্ধার বিষয়ে কথা বলেন। রাষ্ট্রদূত বলেন, কুয়েত সরকার পহেলা ডিসেম্বর থেকে ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত অবৈধ প্রবাসীদের বৈধ হওয়ার সুযোগ ও জরিমানা পরিশোধ করে কুয়েত ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে।

কুয়েত প্রবাসী বাংলাদেশি, যারা ছুটিতে বাংলাদেশে গিয়ে চলমান করোনা পরিস্থিতির কারণে বিমান চলাচল বন্ধ থাকায় নির্ধারিত সময়ে নিজ নিজ কর্মস্থলে ফিরতে পারছেন না, তাদের তালিকা তৈরির জন্য বাংলাদেশ দূতাবাস, কুয়েত অনলাইন নিবন্ধন পদ্ধতি চালু করেছে। বাংলাদেশে আটকে পড়া সকল কুয়েত প্রবাসীকে দূতাবাসের ওয়েবসাইটের নিবন্ধন লিংকে প্রবেশ করে নির্ধারিত ফরম পূরণ করার জন্যে অনুরোধ করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, “যাদের কাছে পাসপোর্ট নেই, এমনকি মেয়াদোত্তীর্ণ পাসপোর্ট এর কোনো ফটোকপিও নেই, তারা যদি বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে ন্যূনতম প্রমাণ দেখাতে সক্ষম হন, তবেই দূতাবাস তাদের নতুন পাসপোর্ট এর আবেদন গ্রহণ করবে। দেশে আটকে পড়া কুয়েত প্রবাসী বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে নিয়ে আসার ব্যাপারে রাষ্ট্রদূত বলেন, কুয়েত সরকার আপাতত গৃহকর্মীদের কুয়েতে ফেরার সুযোগ করে দিচ্ছে। এ কার্যক্রম যেহেতু শুরু করতে যাচ্ছে আগামী ৭ ডিসেম্বর থেকে সেহেতু ধরে নেওয়া হচ্ছে  খুব শিঘ্র কুয়েতে সব ক্যাটাগরির প্রবাসীদের সরাসরি ফেরারও একটি পদক্ষেপ নেবে।

আবার এদিকে ৯ মাস ধরে ইয়েমেনে হুতিদের হাতে বন্দী পাঁচ বাংলাদেশি। ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের হাতে বন্দী রয়েছেন পাঁচ বাংলাদেশিসহ ২০ জন নাবিক। তারা সেখানে প্রায় ৯ মাস ধরে বন্দি। দ্য নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস তাদের নিজস্ব সূত্রের বরাত দিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, বন্দিদের মধ্যে ভারতের কেরালার দুজন, মহারাষ্ট্রের সাতজন, তামিলনাড়ুর দুজন, আর একজন করে পুডুচেরি ও উত্তর প্রদেশের রয়েছেন। বাকি সাতজনের মধ্যে ঠিক কত জন বাংলাদেশি তা দ্য নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের খবরে উল্লেখ করা হয়নি। এর মধ্যে মিশরের নাগরিকও আছেন।

তবে ভারতীয় দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে, বাকি সাতজনের পাঁচজনই বাংলাদেশি নাগরিক। এক্সপ্রেসের খবরে বলা হয়েছে, ইয়েমেনের রাজধানী সানায় গত ফেব্রুয়ারিতে ২০ নাবিককে আটক করে হুতিরা। তিনটি জাহাজে ওমান থেকে সৌদি আরবে যাওয়ার পথে তাদের বন্দি করা হয়।
ওই পাঁচ নাবিক ৯ মাস ধরে আটক থাকা অবস্থায় বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় ও কুয়েতের বাংলাদেশ দূতাবাসের সমন্বয় প্রচেষ্টায় তাদেরকে মুক্ত করা সম্ভব হয়েছে। বর্তমানে ওই পাঁচ বাংলাদেশি নাবিক ইয়েমেনের আন্তর্জাতিক অভিবাসান সংস্থার হেফাজতে রয়েছেন বলে জানান রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ আশিকুজ্জামান।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন দূতাবাসের প্রথম সচিব ও দূতালয় প্রধান নিয়াজ মোর্শেদ, শ্রম কাউন্সেলর আবুল হুসেন, বাংলাদেশ টিভি জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন কুয়েতের সাংবাদিক মঈন সুমন, আ হ জুবেদ, জালাল উদ্দিন, শরিফ মিজান, আল আমিন রানা, মো. হেবজু ও নাসরিন আক্তার মৌসুমি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.