আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়ে অবসরে হাশিম আমলা

সব ধরনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন হাশিম আমলা। তিনি ঘরোয়া ক্রিকেট খেলা চালিয়ে যাবেন, এবং আসন্ন এমজানসি সুপার লীগ ২০১৯ এ খেলবেন ।

এই অবসরের সিদ্ধান্ত গ্রহনের মদ্য দিয়ে আমলা তার প্রায় ১৫ বছরের ক্যারিয়ারের ইতি টানলেন। ২০০৪ সালের নভেম্বরে ভারতে তার টেস্ট অভিষেক ঘটেছিল। ২০০৮ এবং ২০০৯ সালে যথাক্রমে ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন এবং দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে সর্বশেষ ম্যাচ খেলেছেন সদ্য শেষ হওয়া বিশ্বকাপে ।

তিনি শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে অপরাজিত ৮০ রান করেছিলেন এবং দক্ষিণ আফ্রিকা নয় উইকেটে জয় লাভ করেছিল । তবে বিশ্বকাপে সাত ইনিংসে সর্বমোট ২০৩ এসেছিলো তার ব্যাট থেকে। আমলা দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে বেশ কয়েকটি রেকর্ড রয়েছে । দক্ষিন আফ্রিকার হয়ে সর্বোচ্চ ২৭ টি ওয়ানডে শত রান করেছেন, যার মধ্যে ২৪ টি ম্যাচেই দল জয় লাভ করে।
ওয়ানডে ক্রিকেটে দ্রুততম ২০০০, ৩০০০, ৪০০০,৫০০০,৬০০০ এবং ৭০০০ রান করার রেকর্ড তার দখলে। তিনি ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ৪৯.৪৬ গড়ে মোট ৮১১৩ রান করেছেন যার মধ্যে ৩৯ টি হাফ সেঞ্চুরি এবং ২৭ টি সেঞ্চুরি রয়েছে।

তার টেস্ট পরিসংখ্যানও অনেক উজ্জ্বল, আমলা টেস্টে ৪৬.৬৮ গড়ে মোট ৯২২২ রান করেছেন যার মধ্যে ২৮ টি সেঞ্চুরি রয়েছে। টেস্ট ক্রিকেটে ট্রিপল সেঞ্চুরি করা তিনিই প্রথম দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যান, এবং এই ফরম্যাটে তিনি দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী , প্রথম জ্যাক ক্যালিস ।

আমলা ইংল্যান্ড, ভারত এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তার দেশের হয়ে সর্বোচ্চ টেস্ট রান সংগ্রাহক। এবং পরবর্তী সময়ে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সর্বোচ্চ রান করেছেন। আর উল্লেখযোগ্য ইনিংসগলোর মধ্যে রয়েছে, ২০১০ সালে ভারতে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে একবার মাত্র আউট হয়েছিলেন এবং দুই টেস্টে রান করেছিলেন ৪৯৯ রান । দ্বিতীয় ম্যাচের উভয় ইনিংসেই সেঞ্চুরি করেছিলেন,যার প্রথমটি ইনিংসে করেছিলেন অপরাজিত ডাবল সেঞ্চুরি ।

দুই বছর পরে, তিনি ইংল্যান্ডের টেস্ট এবং ওয়ানডে উভয় সিরিজে ম্যান অফ দ্য সিরিজ সম্মান অর্জন করেছিলেন। ২০১২ সালের ডিসেম্বরে পার্থে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তাঁর ১৯৬ রানের ইনিংস তাকে ম্যান অফ দ্য ম্যাচ পুরষ্কার এনে দেয় এবং প্রোটিয়াদের সিরিজজয়ী পারফরম্যান্সে গুরুত্বপূর্ণ অবদান ছিল তার । ২০১৩ সালে টেস্ট ক্রিকেটে আমলা বিশ্বের এক নম্বর র‌্যাঙ্কিংয়ে উঠে আসেন।

অধিনায়ক হিসাবে সংক্ষিপ্ত সময়ে তিনি শ্রীলঙ্কায় একটি বিরল টেস্ট সিরিজ জয়ে প্রোটিয়াদের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন । ২০১০ এবং ২০১৩ সালে সাউথ আফ্রিকার সেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছিলেন । শেষ টেস্ট ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে তার স্কোর ছিল ০ এবং ৩২ রান । আমলা সবচেয়ে জনপ্রিয় ও শান্ত মানুষ হিসাবে খ্যাতি নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গন ছাড়েন। ক

বৃহস্পতিবার তার আন্তর্জাতিক অবসর ঘোষণার ঘোষণায় এক বিবৃতিতে আমলা বলেছিলেন, “প্রথমত, আমাকে এই প্রোটিয়াসদের হয়ে খেলতে দেওয়ার জন্য সর্বশক্তিমান এবং মহান আল্লাহকে সমস্ত ধন্যবাদ জানাই । এই অবিশ্বাস্য যাত্রার সময় আমি অনেক পাঠ শিখেছি, অনেক বন্ধু বানিয়েছি এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণভাবে # প্রোটিয়ারফায়ার নামক একটি ভ্রাতৃত্বের ভালবাসায় ভাগ করেছি।

তথ্যসুত্রঃ ক্রিকিনফো

আমাদের নিউজ /রবিউল ইসলাম